আওয়ামী লীগের ৭ বিদ্রোহী প্রার্থী বহিষ্কার

প্রকাশিত: ১২:৫৩ অপরাহ্ণ, মে ১৭, ২০১৬

ডেস্ক নিউজঃ
হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার ৫ ইউনিয়নে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ৭ জন বিদ্রোহী প্রার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। যে কারণে বহিষ্কৃত বিদ্রোহী প্রার্থীদের সাথে থাকা নেতাকর্মীদের মধ্যে এখন আতংক বিরাজ করছে। নবীগঞ্জ উপজেলার ৫ ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত ৭ জন বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থীরা মনোনয়ন দাখিলের পর থেকেই আওয়ামী লীগের মনোনিত প্রার্থী ও সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক অসন্তোষ বিরাজ করছিল। মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা দ্রুত সময়ের মধ্যে দলের নামধারী ওইসব নেতা বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য জোর দাবী জানান। অবশেষে গত শনিবার রাতে ৭ জনকে বহিষ্কার করা হয়। আওয়ামী লীগের বহিস্কৃত বিদ্রোহী প্রার্থীরা হলেন- ৩ নং ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নে মোঃ ছায়েদ উদ্দিন জায়েদুল, কুর্শি ইউনিয়নে আব্দুল মুকিত, মোঃ আব্দুল বাছিত চৌধুরী, ৮ নং সদর ইউনিয়নে মোঃ মিরাজ আলী, ১১ নং গজনাইপুর ইউনিয়নে ইউপি আওয়ামীলীগ সভাপতি আবুল খায়ের গোলাপ, সফিকুল ইসলাম সেলিম, ১২ নং কালিয়ারভাঙ্গা ইউপি নজরুল ইসলাম। তাদেরকে বহিস্কারের পাশাপাশি দলের প্রার্থীর বিপরীতে কাজ করার অভিযোগ পেলে দলীয় নেতাকর্মীদেরকেও বহিস্কার করা হবে বলে জানান জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। ফলে বহিস্কার আতংক বিরাজ করছে ওই সব সুযোগসন্ধানী মুখোশধারী নেতাকর্মীদের মধ্যে। আসন্ন ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের অনেক দায়িত্বশীল নেতাকর্মীরাই রয়েছেন দলীয় প্রার্থীদের বিপরীত মূখী। তবে তারা দলের প্রার্থীর বিভিন্ন সভা সেমিনারে যোগ দিয়ে দলের রোষানল থেকে বাচাঁর কৌশল নিচ্ছেন। ভিতরে ভিতরে কেউ কেউ বিদ্রোহী প্রার্থী, আবার কেউ কেউ বিএনপি জামায়াত জোটের পক্ষে কাজ করারও খবর পাওয়া গেছে। নির্বাচনের মাঠ সরব করে রেখেছেন সাধারণ নেতাকর্মীরা। দলীয় সুত্রে জানা যায়,ওই ইউনিয়ন গুলোতে বিদ্রোহী প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়নের জন্য উপজেলা, জেলা ও কেন্দ্রীয় পর্যায়ে অনেক দৌড়ঝাপ করেন। কিন্তু মাঠ পর্যায়ে যাচাই বাচাই করে এবং উপজেলা ও জেলা পর্যায়ের মতামত বিবেচনা করে কেন্দ্রীয় দপ্তর তাদের দলীয় প্রার্থী চুড়ান্ত করেন। এক্ষেত্রে আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে ঝড় তোলে উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়ন। পরিবর্তিত হয় ১৩ নং পানিউন্দা ইউনিয়ন। এখানে জেলা মনোনয়ন বোর্ড কর্তৃক প্রেরিত তালিকা থেকে ১৩ নং ইউপিতে এডভোকেট আতাউর রহমান বাদ দিয়ে বর্তমান চেয়ারম্যানকে মনোনয়ন দেয়া হয়। গজনাইপুর ইউনিয়নে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি তৃণমুল পর্যায়ে মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ইমদাদুর রহমান মুকুল এর পরিবর্তে বর্তমান চেয়ারম্যান আবুল খায়ের গোলাপকে মনোনয়ন প্রদান করেন কেন্দ্রীয় দপ্তর। শুরু হয় এলাকায় মিষ্টি বিতরণ ও উলাস। প্রার্থী পরিবর্তনের খবর পেয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তাৎক্ষনিক ভাবে ঢাকায় গিয়ে দলের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাথে স্বাক্ষাত করে বিস্তারিত আলোচনার পর দেশরত্ন শেখ হাসিনা আবুল খায়ের গোলাপের মনোনয়ন পত্র বাতিল করে পূণরায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুলকে মনোনয়ন পত্র প্রদান করেন। শনিবার রাত সাড়ে ১০টায় হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মোঃ আবু জাহির এমপি ও সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল মজিদ খান এমপির নির্দেশক্রমে জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মোঃ আলমগীর খান স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বিদ্রোহী প্রার্থী বহিস্কারের এ তথ্য জানানো হয়।