মৌলভীবাজারে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ, শাশুড়ি, দেবরসহ গ্রেপ্তার ৪

প্রকাশিত: ৬:৩৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ৪, ২০২০

কালনী ভিউ ডেস্ক::
মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় পারিবারিক কলহের জের ধরে সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহত মাজেদা বেগম (২১) উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ পাবই গ্রামের আবদুল মুকিতের স্ত্রী। এ ব্যাপারে শুক্রবার রাতে কুলাউড়া থানায় মামলা হয়েছে। নিহত গৃহবধূর শাশুড়ি, দেবরসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মামলার এজাহার, পুলিশ ও নিহত গৃহবধূর স্বজনদের সূত্রে জানা গেছে, মাজেদার বাবার বাড়ি একই উপজেলার কাদিপুর ইউনিয়নের গুপ্তগ্রামে। গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে তার বিয়ে হয়। স্বামী মুকিত সিলেট নগরীতে একটি রেস্টুরেন্টে বাবুর্চির কাজ করেন। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের জন্য শ্বশুরবাড়ির লোকজন মাজেদাকে বিভিন্নভাবে চাপ দেন। মাজেদার বাবা শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে দীর্ঘদিন ধরে শয্যাশায়ী। এ ছাড়া পরিবারের আর্থিক অবস্থাও ভালো নয়। এ অবস্থায় যৌতুক দেওয়া সম্ভব নয় বলে মাজেদা জানান। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে শ্বশুরবাড়ির লোকজন প্রায়ই তাঁর ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালাতেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শ্বশুরবাড়ির লোকজনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, মাজেদা হঠাৎ করে মারা গেছেন। তড়িঘড়ি করে তাঁরা লাশ দাফনের চেষ্টাও চালানো হয়। এতে স্বজনদের সন্দেহ হয়। বিষয়টি তারা পুলিশকে জানান। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মাজেদার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মৌলভীবাজার জেলা সদরে অবস্থিত ২৫০ শয্যার হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। এ সময় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মাজেদার শাশুড়ি আফিয়া বেগম (৫০), দেবর মোস্তাক আহমদ (২০), জায়েদ আহমদ (২৩) ও আত্মীয় আবদুল জলিলকে (৩২) আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। শুক্রবার রাত আটটার দিকে নিহত মাজেদার মা কবিরুন্নেছা বাদী হয়ে আটক চারজনসহ মাজেদার ভাশুর মুক্তার মিয়া (২৮), স্বামী মুকিত ও দুই ননদকে আসামি করে মামলা করেন। পারিবারিক কলহের জের ধরে শ্বশুরবাড়ির লোকজন শ্বাসরোধে মাজেদা হত্যা করেছেন বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়।