বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হয়: এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এই দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা

প্রকাশিত: ১:১৩ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৫, ২০২০

কালনী ভিউ ডেস্ক::
ইতিহাস আজীবন কথা বলে। ইতিহাস মানুষকে ভাবায়, তাড়িত করে।

প্রতিদিনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা কালক্রমে রূপ নেয় ইতিহাসে। সেসব ঘটনাই ইতিহাসে স্থান পায়— যা কিছু ভালো, যা কিছু প্রথম, যা কিছু মানব সভ্যতার আশীর্বাদ-অভিশাপ।

ইতিহাসের দিনপঞ্জি মানুষের কাছে সবসময় গুরুত্ব বহন করে। এ গুরুত্বের কথা মাথায় রেখে বাংলানিউজের পাঠকদের জন্য নিয়মিত আয়োজন ‘ইতিহাসের এই দিন’।

এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এই দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়।
ঘটনা
• ১৭৭২- ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির জেলা পর্যায়ে ফৌজদারি ও দেওয়ানি আদালত পৃথকীকরণের সিদ্ধান্ত।
• ১৮৫৪- বাংলায় প্রথম রেলপথ স্থাপন।
• ১৮৭২- যুক্তরাজ্যে প্রথম গোপন ব্যালটে সংসদীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।
• ১৮৭৫- ব্রিটিশবিরোধী রাজনৈতিক সংগঠন ইন্ডিয়ান লীগ প্রতিষ্ঠা।
• ১৮৮৯- কলকাতায় মোহনবাগান ভিলায় মোহনবাগান ক্লাব প্রতিষ্ঠিত হয়।
• ১৯৪৭- ব্রিটিশ শাসন থেকে মুক্তি পেয়ে ভারত স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে জন্ম নেয়।
• ১৯৪৮- কোরীয় উপদ্বীপ বিভক্ত হয়ে দক্ষিণ কোরিয়া স্বাধীন দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।
• ১৯৬০- আফ্রিকার দেশ কঙ্গো ফরাসি উপনিবেশ থেকে মুক্ত হয়ে স্বাধীনতা লাভ করে ৷
• ১৯৬৫- ভারতে প্রথম দূরদর্শন প্রদর্শিত হয়।
• ২০০৫- ফিলিস্তিনিদের প্রতিরোধের মুখে গাজা উপত্যকা থেতে পিছু হটতে বাধ্য হয় ইসরায়েল।
• ২০০৬- বাংলাদেশের কাছে ওয়ানডে ম্যাচে পরপর দুইবার হোয়াইটওয়াশ হয় কেনিয়া।
• ২০০৮- অলিম্পিকে নারীদের ১০০০০ মিটার দৌড়ের ফাইনালে তিরুনেশ দিবাবা নতুন অলিম্পিক রেকর্ড স্থাপন করেন।

জন্ম
• ১৭৭১- স্কটিশ ঔপন্যাসিক ওয়াল্টার স্কট।
• ১৮৭২- বাঙালি রাজনৈতিক নেতা, আধ্যাত্মিক সাধক এবং দার্শনিক অরবিন্দ ঘোষ।
• ১৯২২- ‘লালসালু’ উপন্যাসের রচয়িতা কথাসাহিত্যিক সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ। ১৯৭১ সালের ১০ অক্টোবর প্রয়াত হন এ কথাশিল্পী।
• ১৯২৬- কিশোর কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য।

মৃত্যু
• ১৮৩৬- ইতালিয়ান নোবেলজয়ী লেখক গারসিয়া ডেলেডা।
• ১৯১০- ব্রাহ্মধর্ম প্রচারক গিরিশচন্দ্র সেন।

• ১৯৭৫- স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়।

স্বাধীনতার পর দেশ পরিচালনায় বঙ্গবন্ধুর বলিষ্ঠ ও দূরদর্শী পদক্ষেপে বাংলাদেশ সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যেতে থাকে। দীর্ঘদিনের শোষিত-বঞ্চিত এ দেশের মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য তিনি দ্বিতীয় বিপ্লবের কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এই সময়ও তিনি দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রের মুখোমুখি হন। সব ষড়যন্ত্রকে পাশ কাটিয়ে তিনি সামনের দিকে এগিয়ে যেতে থাকেন। বঙ্গবন্ধুর এই সফলতা ও দেশকে উন্নতির দিকে এগিয়ে নেওয়ার গতি বুঝতে পেরেই স্বাধীনতা বিরোধী দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীরা তাকে ঠাণ্ডা মাথায় হত্যা করে।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে বঙ্গবন্ধুর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের বাড়িতে সেনাবাহিনীর বিপথগামী একটি দল হানা দেয়। এ সময় তারা বঙ্গবন্ধুসহ বাড়িতে থাকা পরিবারের সবাইকে একে একে হত্যা করে। বঙ্গবন্ধুর শিশুপুত্র শেখ রাসেলও সেদিন ঘাতকের হাত থেকে রেহাই পায়নি। বঙ্গবন্ধুর দুই মেয়ে শেখ হাসিনা এবং শেখ রেহানা দেশের বাইরে থাকায় সেদিন তারা প্রাণে বেঁচে যান।

সেদিন তিনি ছাড়াও ঘাতকের বুলেটে নিহত হন তার স্ত্রী বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব, ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল, শিশুপুত্র শেখ রাসেলসহ পরিবারের ২৬ সদস্য ও স্বজন। প্রতি বছরের ১৫ আগস্ট জাতি গভীর শোক ও শ্রদ্ধায় স্মরণ করে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সব সদস্যদের এবং পালিত হয় জাতীয় শোক দিবস।

১৯৯৪- কবি ও সাহিত্য সমালোচক হরপ্রসাদ মিত্র।