লন্ডন ১২:২৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান

রিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, সুনামগঞ্জবাসীর দীর্ঘদিনের স্বপ্ন সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত করা হবে।

শনিবার (১০ জুন) বেলা ১১টায় শান্তিগঞ্জ উপজেলার সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কের ৫০ কিলোমিটার এলাকায় ৫১ কোটি ৮৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ১৪১.৬০ মিটার দৈর্ঘ্যের সদরপুর সেতুর নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগ অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে সদরপুর ব্রিজের নকশা প্রণয়ন থেকে সবকিছু বাস্তবায়ন করেছেন। তাদের ধন্যবাদ জানাই। সদরপুরের ব্রিজ আমাদের জীবনের একটি অংশ। আগামীতে সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়ককে চাল লেনে উন্নীত করা হবে। যাতে দ্রুত সময়ের মধ্যে সুনামগঞ্জের মানুষ নিজ নিজ গন্তব্যে পৌঁছাতে পারেন।মন্ত্রী বলেন, যখন খবর পাই সদরপুর সেতু ভেঙে গেছে তখন আমি আমার বুক ভাঙার শব্দ পাই। খুব খারাপ লাগে। সুনামগঞ্জের সাথে একমাত্র সড়ক পথ এটি। এই সেতু ভাঙলে সুনামগঞ্জের সাথে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ থাকবে। আমি একাধিকবার সড়ক ও জনপথের লোকদের সাথে কথা বলেছি। তারা খুব দ্রুত কাজটি করেছেন। নকশা করা, নির্মাণ ব্যয় প্রাক্কলন করাসহ সব কাজ তারা খুব দ্রুত করেছেন। আজ উদ্বোধন হল, দ্রুত কাজ শুরু হবে। এজন্য তাদেরকে ধন্যবাদ। এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে আমি তাদের কাছে কৃতজ্ঞ।

পরিকল্পনামন্ত্রী আরও বলেন, কিছু মানুষ আছেন যারা ঢাকায়, চিটাগাং এ বসে থাকেন। তারা দেশে গণতন্ত্র নেই, উন্নয়ন নেই, মানবাধিকার নেই বলে সময় নষ্ট করছেন। এসব না করে দেশে আরও স্কুল-কলেজ, মসজিদ-মাদরাসা, মন্দির, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নির্মাণ করা দরকার।এম এ মান্নান বলেন, আমি হাওরাঞ্চলের ছেলে, গ্রামের ছেলে, এই এলাকার ছেলে। এলাকার উন্নয়নে সব সময় কাজ করবো। দীর্ঘদিন ধরে আপনাদের সেবায় নিয়োজিত আছি। আগামী নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বললে আমি নির্বাচন করবো, না বললে করবো না। যদি নির্বাচনে আসি দয়া করে আপনারা ন্যায় বিচার করবেন। উন্নয়নের পক্ষে রায় দিবেন; কথা বলবেন। নৌকা উন্নয়নের প্রতীক। এই প্রতীক গরিবের পক্ষে কাজ করে, মহিলাদের জন্য কাজ করে, গ্রামের জন্য কাজ করে, বয়স্ক লোকদের পক্ষে কাজ করে, ভাতা দেয়, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে কাজ করে। আশা করি আপনারা নৌকার পক্ষে থাকবেন।

বিরোধী দলকে ইঙ্গিত করে মন্ত্রী বলেন, আমরা কাজের লোক, কাজ করি। হাওরে, শহরে কাজ করি। একদল আছেন আমাদের সমালোচনায় তারা সব সময় মত্ত থাকেন৷ অথচ আমরা যখন পানির নিচে হাবুডুবু খাই তখন কেউ দেখতে আসেন না৷ আমাদেরকে সান্ত্বনা দেওয়ার সময় থাকেনা। অথচ শেখ হাসিনা সব সময় আমাদের দেখেন, খোঁজখবর রাখেন। পানি আসার আগে কর্মকর্তা পাঠিয়ে খবর নেন, ত্রাণ পাঠান, নগদ টাকা দেন, মোবাইল ফোনে টাকা দেন। জিনিস পত্রের দাম কমান। হাওরের মানুষ, সুনামগঞ্জের মানুষের প্রতি শেখ হাসিনার মায়া আছে। রানীগঞ্জের সেতু করেছেন এবার সদরপুর ও ভমবমি বাজারের সেতুর কাজের উদ্বোধন হচ্ছে। অতি তাড়াতাড়ি সিলেট-সুনামগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়ক ৪ লেনে উন্নীত করা হবে।

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর আয়োজিত সদরপুর সেতুর নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী।

শান্তিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান প্রভাষক নূর হোসেনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সওজের সিলেটের সড়ক জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. ফজলে রব্বে, সিলেট সওজের সড়ক সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী উৎপল সামন্ত, সুনামগঞ্জ সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম প্রামাণিক, সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ এহসান শাহ, সুনামগঞ্জে জেলা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুব আলম, ছাতক সড়ক উপ-বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. সালা উদ্দিন সোহাগ, শান্তিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আনোয়ার উজ্ জামান, শান্তিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সিতাংশু শেখর ধর শিতু, সাধারণ সম্পাদক মো. হাসনাত হোসেন, জয়কলস ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল বাসিত সুজন, শিমুলবাঁক ইউপি চেয়ারম্যান শাহীনুর রহমান শাহীন, পাথারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম, আওয়ামীলীগ নেতা মাও. আবদুল কাইয়ুম, রাজা মিয়া, দরগাপাশা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যানের মনির উদ্দিন ও উপজেলা তাঁতি লীগের সভাপতি গোলাম মোস্তফা প্রমুখ। পরে, দুপুর সাড়ে ১২টায় পাগলা-জগন্নাথপুর-রানীগঞ্জ সড়কের ভমবমি বাজার এলাকার বেইলি সেতুর স্থলে আরও ৮ কোটি ৯৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নতুন সেতুর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন মন্ত্রী।

সূত্র- সিলেট টুডে

ট্যাগ:
লেখক সম্পর্কে

জনপ্রিয়

সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান

প্রকাশের সময়: ০৪:৫১:২৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ জুন ২০২৩

রিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, সুনামগঞ্জবাসীর দীর্ঘদিনের স্বপ্ন সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত করা হবে।

শনিবার (১০ জুন) বেলা ১১টায় শান্তিগঞ্জ উপজেলার সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কের ৫০ কিলোমিটার এলাকায় ৫১ কোটি ৮৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ১৪১.৬০ মিটার দৈর্ঘ্যের সদরপুর সেতুর নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগ অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে সদরপুর ব্রিজের নকশা প্রণয়ন থেকে সবকিছু বাস্তবায়ন করেছেন। তাদের ধন্যবাদ জানাই। সদরপুরের ব্রিজ আমাদের জীবনের একটি অংশ। আগামীতে সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়ককে চাল লেনে উন্নীত করা হবে। যাতে দ্রুত সময়ের মধ্যে সুনামগঞ্জের মানুষ নিজ নিজ গন্তব্যে পৌঁছাতে পারেন।মন্ত্রী বলেন, যখন খবর পাই সদরপুর সেতু ভেঙে গেছে তখন আমি আমার বুক ভাঙার শব্দ পাই। খুব খারাপ লাগে। সুনামগঞ্জের সাথে একমাত্র সড়ক পথ এটি। এই সেতু ভাঙলে সুনামগঞ্জের সাথে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ থাকবে। আমি একাধিকবার সড়ক ও জনপথের লোকদের সাথে কথা বলেছি। তারা খুব দ্রুত কাজটি করেছেন। নকশা করা, নির্মাণ ব্যয় প্রাক্কলন করাসহ সব কাজ তারা খুব দ্রুত করেছেন। আজ উদ্বোধন হল, দ্রুত কাজ শুরু হবে। এজন্য তাদেরকে ধন্যবাদ। এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে আমি তাদের কাছে কৃতজ্ঞ।

পরিকল্পনামন্ত্রী আরও বলেন, কিছু মানুষ আছেন যারা ঢাকায়, চিটাগাং এ বসে থাকেন। তারা দেশে গণতন্ত্র নেই, উন্নয়ন নেই, মানবাধিকার নেই বলে সময় নষ্ট করছেন। এসব না করে দেশে আরও স্কুল-কলেজ, মসজিদ-মাদরাসা, মন্দির, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নির্মাণ করা দরকার।এম এ মান্নান বলেন, আমি হাওরাঞ্চলের ছেলে, গ্রামের ছেলে, এই এলাকার ছেলে। এলাকার উন্নয়নে সব সময় কাজ করবো। দীর্ঘদিন ধরে আপনাদের সেবায় নিয়োজিত আছি। আগামী নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বললে আমি নির্বাচন করবো, না বললে করবো না। যদি নির্বাচনে আসি দয়া করে আপনারা ন্যায় বিচার করবেন। উন্নয়নের পক্ষে রায় দিবেন; কথা বলবেন। নৌকা উন্নয়নের প্রতীক। এই প্রতীক গরিবের পক্ষে কাজ করে, মহিলাদের জন্য কাজ করে, গ্রামের জন্য কাজ করে, বয়স্ক লোকদের পক্ষে কাজ করে, ভাতা দেয়, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে কাজ করে। আশা করি আপনারা নৌকার পক্ষে থাকবেন।

বিরোধী দলকে ইঙ্গিত করে মন্ত্রী বলেন, আমরা কাজের লোক, কাজ করি। হাওরে, শহরে কাজ করি। একদল আছেন আমাদের সমালোচনায় তারা সব সময় মত্ত থাকেন৷ অথচ আমরা যখন পানির নিচে হাবুডুবু খাই তখন কেউ দেখতে আসেন না৷ আমাদেরকে সান্ত্বনা দেওয়ার সময় থাকেনা। অথচ শেখ হাসিনা সব সময় আমাদের দেখেন, খোঁজখবর রাখেন। পানি আসার আগে কর্মকর্তা পাঠিয়ে খবর নেন, ত্রাণ পাঠান, নগদ টাকা দেন, মোবাইল ফোনে টাকা দেন। জিনিস পত্রের দাম কমান। হাওরের মানুষ, সুনামগঞ্জের মানুষের প্রতি শেখ হাসিনার মায়া আছে। রানীগঞ্জের সেতু করেছেন এবার সদরপুর ও ভমবমি বাজারের সেতুর কাজের উদ্বোধন হচ্ছে। অতি তাড়াতাড়ি সিলেট-সুনামগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়ক ৪ লেনে উন্নীত করা হবে।

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর আয়োজিত সদরপুর সেতুর নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী।

শান্তিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান প্রভাষক নূর হোসেনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সওজের সিলেটের সড়ক জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. ফজলে রব্বে, সিলেট সওজের সড়ক সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী উৎপল সামন্ত, সুনামগঞ্জ সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম প্রামাণিক, সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ এহসান শাহ, সুনামগঞ্জে জেলা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুব আলম, ছাতক সড়ক উপ-বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. সালা উদ্দিন সোহাগ, শান্তিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আনোয়ার উজ্ জামান, শান্তিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সিতাংশু শেখর ধর শিতু, সাধারণ সম্পাদক মো. হাসনাত হোসেন, জয়কলস ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল বাসিত সুজন, শিমুলবাঁক ইউপি চেয়ারম্যান শাহীনুর রহমান শাহীন, পাথারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম, আওয়ামীলীগ নেতা মাও. আবদুল কাইয়ুম, রাজা মিয়া, দরগাপাশা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যানের মনির উদ্দিন ও উপজেলা তাঁতি লীগের সভাপতি গোলাম মোস্তফা প্রমুখ। পরে, দুপুর সাড়ে ১২টায় পাগলা-জগন্নাথপুর-রানীগঞ্জ সড়কের ভমবমি বাজার এলাকার বেইলি সেতুর স্থলে আরও ৮ কোটি ৯৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নতুন সেতুর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন মন্ত্রী।

সূত্র- সিলেট টুডে