লন্ডন ০২:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নির্বাচনকালীন সরকার ছাড়া সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়, ইউরোপীয় ইউনিয়নকে জানিয়েছে বিএনপি

নির্বাচন কালীন সরকার ছাড়া বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয় বলে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতিনিধিদলকে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

মঙ্গলবার (৪ জুলাই) বিকালে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের কাছে এ কথা বলেন তিনি।এর আগে ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলির নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি।বৈঠকে আলোচনা প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন,‘আপনারা নিশ্চয়ই আঁচ করেছেন যে নির্বাচনের ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে। বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতি, আমাদের কী চিন্তা, আমরা কী করছি, কী ভাবছি—এ বিষয়গুলো নিয়েই আলোচনা হয়েছে।

’নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ব্যাপারে তাদের বক্তব্য কী—জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তারা তো সব সময় বলে আসছে, বাংলাদেশে অবাধ সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন চাই, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চাই। এটা আরও ভালোভাবে এক্সপ্লোর করার জন্য বাংলাদেশে আরও একটা টিম আসবে। তারা দেখবেন যে বাংলাদেশে আসলে অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়ার সুযোগ আছে কি না।

’তিনি বলেন,‘আমরা বলেছি, বাংলাদেশের যে বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি, এখানে নিরপেক্ষ, নির্দলীয় সরকার ছাড়া কোনো সরকারের অধীনে নির্বাচন করা সম্ভব নয়।’মূলত আগামী সপ্তাহে ইউরোপীয় ইউনিয়নের একটি নির্বাচন পর্যবেক্ষণের জন্য যে অগ্রবর্তী দল আসবে,তা নিয়েই বৈঠক হয় বলে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব।তিনি বলেন, ‘আপনারা জানেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের একটি অ্যাডভান্স টিম আসবে আগামী সপ্তাহে। তাদের সঙ্গে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা হবে, কথা হবে। সিভিল সোসাইটির কথা হবে। ওই টিমের সঙ্গে আলোচনার ব্যাপারেই আমাদের কথা হয়েছে।

’আন্তর্জাতিক মধ্যস্থতা হলে সংলাপের সম্ভাবনা আছে কি না, জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমি এ বিষয়ে এখনোই কোনো কথা বলতে পারব না। কারণ সে বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। আলোচনাটা হচ্ছে যে বাংলাদেশে বর্তমানে নির্বাচনের কোনো পরিস্থিতি আছে কি না। এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচন সম্ভব কি না, সেটাই তারা জানতে চাচ্ছেন।’মানবাধিকার বিষয়ে কী আলোচনা হয়েছে—জানতে চাইলে তিনি বলেন,‘মানবাধিকার বিষয়ে কথা বলেছেন আমাদের মানবাধিকার সম্পাদক। ’বর্তমানে নির্বাচনকালীন প্রেসক্রিপশন আলোচনায় আসছে, এ নিয়ে উনাদের (ইইউ) কোনো সাজেশন আছে কি না, জানতে চাইলে বিএনপি নেতা বলেন, ‘প্রেসক্রিপশনের ব্যাপারে তো প্রশ্নই উঠতে পারে না। কিসের প্রেসক্রিপশন। এখানে ইলেকশন হতে হবে। আমরা বলেছি, নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া নির্বাচন সম্ভব নয়। বর্তমানে আওয়ামী লীগ যে অবস্থান তৈরি করেছে, তাতে প্রমাণিত হয়ে গেছে গত দুটো নির্বাচনে—নির্দলীয় সরকার ছাড়া নির্বাচন সম্ভব নয়।’তিনি বলেন,‘প্রেসক্রিপশনের প্রশ্ন না। সংবিধানে আছে জনগণ ভোট দেবে। সুষ্ঠু, অবাধ নির্বাচন হবে।

সেখানে জনগণের ভোট দিয়ে সরকার হবে।’বৈঠকে মির্জা ফখরুলের সঙ্গে ছিলেন দলের মানবাধিকার-বিষয়ক সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ। এ ছাড়া রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলির সঙ্গে ছিলেন ইইউয়ের ডিসিএম স্প্যানিয়ার বার্ন্ড ও রাজনৈতিক কর্মকর্তা সেবাস্টিয়ান।

ট্যাগ:
লেখক সম্পর্কে

জনপ্রিয়

নির্বাচনকালীন সরকার ছাড়া সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়, ইউরোপীয় ইউনিয়নকে জানিয়েছে বিএনপি

প্রকাশের সময়: ০৩:৪৭:২৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ জুলাই ২০২৩

নির্বাচন কালীন সরকার ছাড়া বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয় বলে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতিনিধিদলকে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

মঙ্গলবার (৪ জুলাই) বিকালে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের কাছে এ কথা বলেন তিনি।এর আগে ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলির নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি।বৈঠকে আলোচনা প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন,‘আপনারা নিশ্চয়ই আঁচ করেছেন যে নির্বাচনের ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে। বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতি, আমাদের কী চিন্তা, আমরা কী করছি, কী ভাবছি—এ বিষয়গুলো নিয়েই আলোচনা হয়েছে।

’নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ব্যাপারে তাদের বক্তব্য কী—জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তারা তো সব সময় বলে আসছে, বাংলাদেশে অবাধ সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন চাই, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চাই। এটা আরও ভালোভাবে এক্সপ্লোর করার জন্য বাংলাদেশে আরও একটা টিম আসবে। তারা দেখবেন যে বাংলাদেশে আসলে অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়ার সুযোগ আছে কি না।

’তিনি বলেন,‘আমরা বলেছি, বাংলাদেশের যে বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি, এখানে নিরপেক্ষ, নির্দলীয় সরকার ছাড়া কোনো সরকারের অধীনে নির্বাচন করা সম্ভব নয়।’মূলত আগামী সপ্তাহে ইউরোপীয় ইউনিয়নের একটি নির্বাচন পর্যবেক্ষণের জন্য যে অগ্রবর্তী দল আসবে,তা নিয়েই বৈঠক হয় বলে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব।তিনি বলেন, ‘আপনারা জানেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের একটি অ্যাডভান্স টিম আসবে আগামী সপ্তাহে। তাদের সঙ্গে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা হবে, কথা হবে। সিভিল সোসাইটির কথা হবে। ওই টিমের সঙ্গে আলোচনার ব্যাপারেই আমাদের কথা হয়েছে।

’আন্তর্জাতিক মধ্যস্থতা হলে সংলাপের সম্ভাবনা আছে কি না, জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমি এ বিষয়ে এখনোই কোনো কথা বলতে পারব না। কারণ সে বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। আলোচনাটা হচ্ছে যে বাংলাদেশে বর্তমানে নির্বাচনের কোনো পরিস্থিতি আছে কি না। এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচন সম্ভব কি না, সেটাই তারা জানতে চাচ্ছেন।’মানবাধিকার বিষয়ে কী আলোচনা হয়েছে—জানতে চাইলে তিনি বলেন,‘মানবাধিকার বিষয়ে কথা বলেছেন আমাদের মানবাধিকার সম্পাদক। ’বর্তমানে নির্বাচনকালীন প্রেসক্রিপশন আলোচনায় আসছে, এ নিয়ে উনাদের (ইইউ) কোনো সাজেশন আছে কি না, জানতে চাইলে বিএনপি নেতা বলেন, ‘প্রেসক্রিপশনের ব্যাপারে তো প্রশ্নই উঠতে পারে না। কিসের প্রেসক্রিপশন। এখানে ইলেকশন হতে হবে। আমরা বলেছি, নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া নির্বাচন সম্ভব নয়। বর্তমানে আওয়ামী লীগ যে অবস্থান তৈরি করেছে, তাতে প্রমাণিত হয়ে গেছে গত দুটো নির্বাচনে—নির্দলীয় সরকার ছাড়া নির্বাচন সম্ভব নয়।’তিনি বলেন,‘প্রেসক্রিপশনের প্রশ্ন না। সংবিধানে আছে জনগণ ভোট দেবে। সুষ্ঠু, অবাধ নির্বাচন হবে।

সেখানে জনগণের ভোট দিয়ে সরকার হবে।’বৈঠকে মির্জা ফখরুলের সঙ্গে ছিলেন দলের মানবাধিকার-বিষয়ক সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ। এ ছাড়া রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলির সঙ্গে ছিলেন ইইউয়ের ডিসিএম স্প্যানিয়ার বার্ন্ড ও রাজনৈতিক কর্মকর্তা সেবাস্টিয়ান।